রমাযানে বিতির নামায জামাতে পড়া উত্তম, Beter Namaz.


হযরত উমার রা. উবাই বিন কা'ব ও তামীমে দাৱী রা.-এর ইমামতিতে
মানুষকে একত্রিত করলেন আর হযরত উবাই ৱা, তিন রাকাত বিতির পড়াতেন। (আব্দুর রাযযাক: ৭৭২৭)

হাদীসটির স্তর : সহীহ, মাউফূক। ইমরান বিন মুসা ব্যতীত এ হাদীসের রাবীগণ সকলেই বুখারী-মুসলিমের নির্ভরযোগ্য রাবী। আর ইমরান বিন মুসা নির্ভরযোগ্য। (আল কাশেফ: ৪২৭৭) এ হাদীসের ভিত্তিতে প্রমাণিত হয় যে, রমাযান মাসে বিতির নামায জামা'আতে পড়া উত্তম।

হযরত আতা রহ. থেকে সহীহ সনদে বর্ণিত আছে যে, তিনি লোকদেরকে
বিতিরসহ ২৩ রাকাত নামায আদায় করতে দেখেছেন। (ইবনে আবী শাইবা: ৭৭৭০)

সারসংক্ষেপ : হযরত আতা বিন আবি রবাহ রহ. শতাধিক সাহাবায়ে কিরামের সাহচার্য লাভ করেছেন এবং তাঁদের থেকে দ্বীন শিখেছেন। সুতরাং হযরত আতা রহ. যে সকল মানুষদেরকে ২০ রাকাত তারাবীহ'র সাথে ঐ জামাতে তিন। রাকাত বিতির পড়তে দেখেছেন তাঁরা সাহাবায়ে কিরাম এবং জ্যেষ্ঠ তাবিঈগণ। তাদের আমল ছিলো বিতির নামায তারাবীহ'র সাথে জামাতে আদায় করা। অবশ্য কেউ যদি জামাতে না গিয়ে একাকী তারাবীহ পড়ে তাহলে সে বিতিরও একাকী পড়তে পারে। তারাবীহ এবং বিতির উভয়টিই রমাযান মাসে জামাতে পড়া উত্তম হবে।

Post a Comment

0 Comments