পবিত্র লাইলাতুল কদর | Holy Shab-e-Qadr Saturday night

লাইলাতুল কদর (আরবী: لیلة القدر‎‎) এর অর্থ অতিশয় সম্মানিত ও মহিমান্বিত রাত বা পবিত্র রজনী। আরবি ভাষায় ‘লাইলাতুল’ অর্থ হলো রাত্রি বা রজনী এবং ‘কদর’ শব্দের অর্থ সম্মান, মর্যাদা, মহাসম্মান।


ধর্মপ্রাণ মুসলমানের কাছে শবে কদরের রাত হাজার রাতের চেয়ে পুণ্যময়। মহান আল্লাহ ঘোষণা দিয়েছেন, ‘হাজার রাতের চেয়েও উত্তম’ পবিত্র শবে কদর সমগ্র মানবজাতির জন্য অত্যন্ত বরকতময় ও পুণ্যময় রজনী। সহস্র মাসের ইবাদত-বন্দেগিতে যে পুণ্য অর্জিত হয়, তার চেয়েও বেশি পুণ্য অর্জিত হয় এই বরকতময় রাতের এবাদত-বন্দেগিতে।

মহান আল্লাহপাক আল কোরআনে এ রাতের মর্যাদা ও তাৎপর্য নিয়ে এরশাদ করেছেন- নিশ্চয়ই আমি এই কোরআন নাজিল করেছি লাইলাতুল কদরে। আপনি কি জানেন (হে মুহাম্মদ (সা.)! লাইলাতুল কদর কী? লাইলাতুল কদর হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। এ রাতে ফেরেশতারা ও রুহ স্বীয় পালনকর্তার নির্দেশে অবতীর্ণ হন। পরম শান্তি বিরাজ করতে থাকে সূর্যোদয় পর্যন্ত। হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত আছে- রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, কদরের এই রাত শুধু আমার উম্মতরাই পেয়েছে। কিন্তু রাত কোনটি তা বলে দেননি। হাদিস শরিফেও নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি কোনটি কদরের রাত। নিঃসন্দেহে এতে অনেক রহস্য ও তাৎপর্য নিহিত রয়েছে। তবে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে কদরের রাত অনুসন্ধানের তাগিদ দিয়েছেন। অর্থাৎ ২১, ২৩, ২৫, ২৭ বা ২৯তম রাত। এ জন্য নবী করিম (সা.) রমজানের শেষ দশদিন ইতিকাফ করতেন। তবে ইসলামী চিন্তাবিদ, গবেষক ও বিশেষজ্ঞদের অনেকেই রমজান মাসের ২৭তম রাত অর্থাৎ ২৬ রমজান দিবাগত রাতকে পুণ্যময় মহিমান্বিত রজনী হতে পারে বলে উল্লেখ করেছেন।
ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে রাতটি কাটাতে পারলে এ রাতের প্রকৃত সুফল পাওয়া যায়।

মহান আল্লাহ তায়ালা এই পবিত্র রজনীতেই সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ ঐশী গ্রন্থ কোরআনুল করিম নাজিল করেন। এ কারণেই এই রাত এত বেশি মহিমান্বিত ও মর্যাদাপূর্ণ। পবিত্র কোরআন বিশ্ব মানবের ইহকাল ও পরকালের সামগ্রিক কল্যাণের পথপ্রদর্শক এক সর্বজনীন, শাশ্বত ও পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। পবিত্র কোরআনে লাইলাতুল কদরকে রমজানুল মুবারকের একটি রাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

পবিত্র কোরআন নাজিল হওয়া প্রসঙ্গে মহান আল্লাহপাক বলেছেন, এটি এমন একটি কিতাব যা আমি আপনার কাছে বরকত হিসেবে প্রেরণ করেছি; যাতে মানুষ এর আয়াতগুলো নিয়ে চিন্তা করে এবং জ্ঞানীরা তা অনুধাবন করে। প্রিয় নবী (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে ওই ব্যক্তিই উৎকৃষ্ট যে নিজে পবিত্র কোরআন থেকে শিক্ষা লাভ করেছে এবং অপরকেও শিক্ষা দেয়। যিনি অন্যকে কোরআন শিক্ষা দেন, তিনিই শ্রেষ্ঠ শিক্ষকের মর্যাদা লাভ করবেন। কোরআন মজিদের শিক্ষা মানুষকে প্রকৃত ইমানদার করে তোলে, চরিত্রকে করে উন্নত। মানুষের ধর্মীয় অনুভূতির সঙ্গে মানবিক অনুভূতির সমন্বয় ঘটিয়ে তাকে সঠিক পথ প্রদর্শন করে। এ জন্যই পবিত্র কোরআন পড়ার সঙ্গে এর মর্মবাণী অনুধাবনেরও তাগিদ দেয়া হয়েছে। কোরআনের মর্মবাণী অনুধাবন করলে মানুষ লোভ-লালসা, হিংসা-দ্বেষ, সন্ত্রাস, পাশবিকতা, ঘৃণ্য আচরণ, পরশ্রীকাতরতা থেকে নিজেদের মুক্ত রাখতে পারবে। মানুষ হয়ে উঠবে গরিব-দুঃখীদের প্রতি দরদি ও সহানুভূতিশীল। এটিই পবিত্র কোরআনুল করিমের শিক্ষা যা আমার জানতে পারলাম।

পবিত্র শবে কদর উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এবং বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি রেডিও চ্যানেল বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করবে।
আজকের রাতটি ব্যক্তি-সমাজ-রাষ্ট্র এবং সামগ্রিকভাবে বিশ্ববাসীর কল্যাণে এবাদত-বন্দেগি করে কাটাবে মানুষ। এই এবাদত কবুল করার জন্য আমরা মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে প্রার্থনা জানাই আমিন।

Post a Comment

0 Comments