কুরবানী ঈদ ২০১৯, কুরবানী ঈদ কত তারিখে?

আসসালামু আলাইকুম আসা করি সকলেই ভালো আছেন, আলহামদুলিল্লাহ আমিও ভালো আছি  সামনে ঈদ উল আযহা বা ঈদ উল আজহা বা ঈদ উল আধহা (আরবি: عيد الأضحى‎, প্রতিবর্ণী. ʿīd al-ʾaḍḥā, অনুবাদ 'ত্যাগের উৎসব'‎, ইসলাম ধর্মাবলম্বিদের সবচেয়ে বড় দু'টো ধর্মীয় উৎসবের দ্বিতীয়টি।[১] চলতি কথনে এই উৎসবটি কুরবানির ঈদ নামেও পরিচিত। এই উৎসবকে ঈদুজ্জোহাও বলা হয়। ঈদুল আযহা মূলত আরবী বাক্যাংশ। এর অর্থ হলো ‘ত্যাগের উৎসব’।[২] এই উৎসবের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল ত্যাগ করা। এ দিনটিতে মুসলমানেরা ফযরের নামাযের পর ঈদগাহে গিয়ে দুই রাক্বাত ঈদুল আযহা’র নামাজ আদায় করে ও অব্যবহিত পরে স্ব স্ব আর্থিক সামর্থ্য অনুযায়ী উট, গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষ আল্লাহর নামে কোরবানি করে।


ইসলামী চান্দ্র পঞ্জিকায়, ঈদুল আযহা জ্বিলহজ্জের ১০ তারিখে পড়ে। আন্তর্জাতিক (গ্রেগরীয়) পঞ্জিকায় তারিখ প্রতি বছর ভিন্ন হয়, সাধারণত এক বছর থেকে আরেক বছর ১০ বা ১১ দিন করে কমতে থাকে। ঈদের তারিখ স্থানীয়ভাবে জ্বিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখার ওপর নির্ভর করে।


  কুরবানী ঈদ কত তারিখে👇


কুরবানী ঈদ ২০১৯ আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহা সম্ভাব্য ১২ আগস্ট (২৮ শ্রাবণ), সোমবার।


কুরবানীর সময়:

যিলহজ্ব মাসের  ১০ তারিখ থেকে ১২ তারিখ সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত মোট তিন দিন কুরবানীর সময়। তবে সবচেয়ে উত্তম হল প্রথম দিন কুরবানী করা। এরপর দ্বিতীয় দিন এরপর তৃতীয় দিন।-বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৮; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৯৫

বারা রা. থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ঈদের দিন আমরা প্রথমে নামায আদায় করি। অতপর ফিরে এসে কুরবানী করি। যে ব্যক্তি এভাবে আদায় করবে সে আমাদের নিয়ম মতো করল। আর যে নামাযের আগেই পশু জবাই করল সেটা তার পরিবারের জন্য গোশত হবে, এটা কুরবানী হবে না।-সহীহ মুসলিম ২/১৫৪

সবাই ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন আল্লাহ হাফেজ।

Comments