কম্পিউটার সফটওয়্যার

কম্পিউটারের যে কোন যন্ত্র বা যন্ত্রাংশকেই হার্ডওয়্যার (Hardware) বলা হয়। তেমনি কম্পিউটারে ব্যবহৃত সকল প্রেগ্রাম বা প্রোগ্রাম সমষ্টিকে সফটওয়্যার বলা হয়। সফটওয়্যার (Saftware) হচ্ছে অদৃশ। মানুষের শরীরকে যদি হার্ডওয়্যার ধরা হয়, তাহলে সফটওয়্যার প্রাণ। প্রাণ ছাড়া দেহ যেমন কিছুই করতে পারে না তেমনি সফটওয়্যার ছাড়া কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ অর্থাৎ হার্ডওয়্যারও কিছুই করতে পারে না। সফটওয়্যার প্রধানত দুই ধরণের। এর একটিকে বলা হয় অপারেটিং সফটওয়্যার বা সিস্টেম সফটওয়্যার যাহা কম্পিউটার চালনার জন্য প্রযোজ্য। যেমন- ডস, উইন্ডোজ, লিন্যাক্স, ইউনিক্স ইত্যাদি। অন্যটি হল এ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার বা ব্যবহারিক সফটওয়্যার। যেমন এম এস ওয়ার্ড, এক্সেল, একসিস ইলাস্ট্রেটর ইত্যাদি। বর্তমানে ব্যাংক, বীমা, বিদ্যুৎ অফিস, রেলওয়ে, বিমান ইত্যাদিতে প্রোগ্রামার দ্বারা সফটওয়্যার তৈরি করে কার্য পরিচালনা করা হয় ।


অপারেটিং সিস্টেম Operating System

অপারেটিং সিস্টেমঃ
কম্পিউটার পরিচালনার জন্য ব্যবহৃত হার্ডওয়্যারের সাথে অন্যান্য সফ্টওয়্যারের সমন্বয় সাধনের উপাদান হচ্ছে অপারেটিং সিস্টেম। হার্ডওয়্যারের সাথে সমন্বয় করে ব্যবহারিক প্রোগ্রাম পরিচালনা, প্রাথমিক স্মৃতিসহ সকল ধরণের সহায়ক স্মৃতিতে তথ্য সংরক্ষণ ব্যবস্থাপনা প্রভৃতি কার্যক্রম প্রধানত অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা পরিচালিত হয়। এক কথায় বলা যায় কম্পিউটার সংগঠনের যন্ত্রাংশ সমুহকে কার্যক্ষম করাই হচ্ছে অপারেটিং সিস্টেম।

হার্ডওয়্যার ও সফ্টওয়্যারের ভিন্নতা এবং কার্যক্রমের ধরন অনুসারে বিভিন্ন প্রকারের অপারেটিং সিস্টেম ব্যবত হয়। বর্ণ ভিত্তিক নির্দেশ প্রদান সম্পন্ন একটি অপারেটিং সিস্টেম হচ্ছে ডস (DOS)। নেটওয়ার্ক ভিত্তিক কাজের জন্য ইউনিক্স, লিনাক্স প্রভৃতি চিত্রভিত্তিক নির্দেশ প্রদানের মাধ্যমে কার্য সম্পাদনে সক্ষম। মাইক্রোসফট কর্পোরেশনের একটি জনপ্রিয় অপারেটিং সিস্টেম হল Windows।

Comments